30 C
Bangladesh
রবিবার, মার্চ ৩, ২০২৪

কুবি শিক্ষকদের বাসায় দিনদুপুরে চুরি

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়কুবি শিক্ষকদের বাসায় দিনদুপুরে চুরি
দিন দুপুরে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) সংলগ্ন হাজী ভিলা এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষকের ফ্ল্যাট বাসায় চুরির ঘটনা ঘটেছে। এতে স্বর্ণালংকার, ল্যাপটপসহ প্রায় আড়াই লক্ষ টাকার মালামাল চুরি হয়েছে বলে জানা যায়।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শিক্ষকেরা বাসায় না থাকার সুযোগে গত ৬ মে (শুক্রবার) দুপুর ১টার দিকে হাজী ফরিদ ভিলার (হাজী ভিলা) চতুর্থ তলায় এ চুরির ঘটনা ঘটে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক অদিতি সরকার ও আইন বিভাগের প্রভাষক সাদিয়া তাবাসুমের বাসার ফ্ল্যাটের তালা ভেঙ্গে এ মালামাল চুরি করা হয়। এ ঘটনায় ভবনের মালিক হাজী ফরিদ মিয়া সদর দক্ষিণ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এদিকে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অদিতি সরকারের সাথে অসদাচরণের অভিযোগ উঠেছে মালিক হাজী ফরিদ মিয়ার বিরুদ্ধে। অদিতি সরকার অভিযোগ করেন মালিকের কাছে চুরির বিষয়টি জানতে চাইলে সে লাঞ্চিত করে বাসা থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। তবে বিষয়টি অস্বীকার করে মালিক ফরিদ মিয়া বলেন, অদিতি আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করে নিজেই বের হয়ে যাবেন বলেন। আমি বলছি বের হলে বের হয়ে যেতে।
এছাড়া এঘটনাকে কেন্দ্র করে ভবনের কেয়ার টেকার বিল্লাল কে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ভবনের মালিক, মালিকের মেয়ের জামাই ও এক ভাড়াটিয়ার বিরুদ্ধে। বিল্লাল বলেন, আমি এ চুরি সম্পর্কে জানিনা। তারা আমাকে দোষারূপ করে মারধর করেন। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।
ভবনের সিসি ফুটেজ ঘুরে দেখা যায়, ঘটনার দিন দুপুর ১:০৬ মিনিটে ভবনের সামনে এক মোটর বাইক আরোহীকে নামতে দেখা যায়। পরে সে একটি ব্যাগ হাতে ভবনে প্রবেশ করেন। সিসি ফুটেজে স্পষ্টভাবে দেখা যায় লোকটি তৃতীয় ও চতুর্থ তলার কয়েকটি রুমে প্রবেশের চেষ্টা করে। পরে চতুর্থ তলার একটি রুমের দরজার তালা  প্লাস দিয়ে ভেঙ্গে প্রবেশ করে। প্রায় বিশ মিনিট পর ব্যাগ হাতে বের হতে দেখা যায়।
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অদিথি সরকার বলেন, ঘটনার দিন সকালে আমি ঢাকায় যাই তিনটায় ফিরে আসি। এরমাঝে চুরির ঘটনাটি ঘটে। আমার স্বর্ণালংকারসহ দেড় লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। এছাড়া আমার সহকর্মীর ল্যাপটপসহ অন্যান্য জিনিসপত্র চুরি হয়। এ বিষয়ে ভবনের মালিক অভিযোগ দায়ের করেছেন।
এবিষয়ে জানতে চাইলে কোটবাড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ রিয়াজ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমরা সিসি ফুটেজ সংগ্রহ করছি। সে অনুযায়ী আমরা তদন্ত করছি।
কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, আমরা অভিযোগটি পেয়েছি। কোটবাড়ি পুলিশ ফাড়িঁকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মাহাবুবুল হক ভূইঁয়া বলেন, এ ধরণের কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখব। সে অনুযায়ী আমরা তদন্ত করবাে।

Check out our other content

Check out other tags:

Most Popular Articles