35 C
Bangladesh
শনিবার, মে ২৫, ২০২৪

চবি শিক্ষককে ছাত্রলীগ নেতার হুমকি, অডিও ক্লিপ ফাঁস

চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়চবি শিক্ষককে ছাত্রলীগ নেতার হুমকি, অডিও ক্লিপ ফাঁস

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) এক শিক্ষককে মারধরের হুমকির অভিযোগ উঠেছে শাখা ছাত্রলীগের এক নেতার বিরুদ্ধে।

অভিযুক্ত ওই নেতা শাখা ছাত্রলীগের উপগ্রুপ সিক্সটি নাইনের নেতা ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপুর অনুসারী। অন্যদিকে ভুক্তভোগী শিক্ষকের নাম তানভীর হাসান মিথুন। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের একজন প্রফেসর।

প্রফেসর তানভীর হাসান মিথুনকে ফোন দিয়ে মারার ও ডিপার্টমেন্টে ভাঙচুরের হুমকি দেন বলে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে রাজু মুন্সি নামের ওই ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে। ফোনালাপের অডিও ক্লিপটি ইতোমধ্যেই এই ক্যাম্পাসের হাতে এসে পৌঁছেছে।

এই হুমকির প্রতিবাদে সোমবার (৪ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ভুক্তভোগী ওই শিক্ষক তানভীর হাসান মিথুন।

ভুক্তভোগী ওই শিক্ষকের সাথে যোগাযোগ করলে এই ক্যাম্পাসকে তিনি বলেন, আমি কিছুদিন আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে গেস্ট টিচার হিসেবে একটি পরীক্ষার হলে ডিউটি করতে যাই। সেখানে এন্জয় বড়ুয়া নামে একজন শিক্ষার্থীকে নকল করার কারণে বহিস্কার করি। সেসময় তার সাথে থাকা মোবাইল ফোনটিও জব্দ করা হয়।

আরো পড়ুন:  বাংলাদেশ তরুণ কলাম লেখক ফোরাম-এর ২০২৩-২৪ কার্যবর্ষের কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন

তিনি আরো বলেন, পরে ওই ছেলের আর্থিক দুরাবস্থার কথা জানালে আমি নিজেই গিয়ে বাংলা বিভাগের শিক্ষকদের কাছে তার জন্য যাই। কিন্তু আজকে হঠাৎ ছাত্রলীগ নেতা রাজু মুন্সি আমাকে ফোন দিয়ে ওই ছেলের (এনজয় বড়ুয়া) বরাত দিয়ে মারার হুমকি দেয়। সে বলে যে, (রাজু মুন্সি) সেই নাকি আমাকে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বানিয়েছে। এমনকি আমাকে মারার জন্য নাকি সে সুপারিশ পেয়েছে। ক্যাম্পাসে আসলে নাকি আমাকে মারবে, আমার ডিপার্টমেন্টও ভাঙচুর করবে।

ফোনকলের অংশটি এরূপ:
শিক্ষক: তুমি সুপারিশ করছো বলতে? তোমার কথা বলার অ্যাপ্রোচ এমন কেন?
ছাত্রলীগ কর্মী: আমার অ্যাপ্রোচ এর থেকে বাজে। আমি ভিসি ম্যামের রুমে। বিচার দিবেন নাকি ভিসি ম্যামের কাছে? ফোন ধরাই দিবো?
শিক্ষক: কী?
ছাত্রলীগ কর্মী: আমি ভিসি ম্যামের রুমে। বিচার দিবেন আমার বিরুদ্ধে?
শিক্ষক: না, বুঝি নাই, তোমার কথা বলার অ্যাপ্রোচ এমন কেন?
ছাত্রলীগ কর্মী: আমার কথা এর থেকে বাজে। অ্যাপ্রোচ! আপনি আমাকে চিনেন না। আমি… কথার চেয়ে হাত বেশি চলে যে। আপনি টিচার হইছেন তো কী হইছে? একটু রেকর্ডিং করে রাখেন না! আপনি টিচার হইছেন তো কী হইছেন? কথা থেকে আমার হাত বেশি চলে তো!

আরো পড়ুন:  চবির ‘বি’ ইউনিটে ফলাফল প্রকাশ, পাসের হার ৪৩.৩৬ শতাংশ

শিক্ষক: তুমি কী বলতে চাইছো কিছুই বুঝি নাই।
ছাত্রলীগ কর্মী: আপনি তো কোন কিছু বুঝবেন না। টিচার হয়ে গেছেন না, এখন কোন কিছু বুঝবেন না তো! আমি দেখা করতেছি আপনার সাথে তখন সব বুঝবেন।শিক্ষক: মানে কী দেখা করবা, কী বলতে চাইছো কিছুই বুঝি নাই। তুমি একটু স্পেসিফিক বলবা?
ছাত্রলীগ কর্মী: আপনাকে টিচার করা হইছে কী জন্য? আমাদের পোলাপানকে রক্ষা করার জন্য না? নাকি এগুলাকে খালি ধরে ধরে উল্টাপাল্টা ইয়া করার জন্য?

শিক্ষক: উল্টাপাল্টা ইয়া করার জন্য মানে কী? আর আমাকে তুমি টিচার বানাইছো? কাকে কী বলো? তোমার মাথামুথা ঠিক আছে?
ছাত্রলীগ কর্মী: আরে ফোন রাখেন মিয়া। আমি দেখা করতেছি। আপনি কই?
শিক্ষক: আমি কোথাই তোমার জানার দরকার নাই। কারে কী বলতেছো? মাথা তোমার ঠিক আছে?
ছাত্রলীগ কর্মী: আরে আমার মাথা ঠিক আছে। আপনার মাথা ঠিক নাই যে। টিচার হওয়ার আগে ঠ্যাং ধরে বসে থাকতেন। আর টিচার হয়ে ভুলে গেছেন।

আরো পড়ুন:  চবি ছাত্রী হেনস্তার শিকার,রাতে হলে প্রবেশের সময় নির্ধারণ

ছাত্রলীগ কর্মী: কিছু না। আপনারে মারার জন্য সুপারি পাইছি, বুঝছেন না? ক্যাম্পাসে আসলে পিটাবো। আপনাকে পিটাইলে টাকা দিবে আমাকে। রেকর্ডিং করে এগুলা ভিসি ম্যামরে শুনায়েন। আবোল-তাবোল পোলাপানরে টিচার বানিয়ে রাখছে! আপনার ডিপার্টমেন্টে ভাংচুর করবো এখন।
শিক্ষক: কী করবা আমার ডিপার্টমেন্টে?
ছাত্রলীগ কর্মী: ডিপার্টমেন্টে তালা লাগাবো।
শিক্ষক: তুমি আমার ডিপার্টমেন্টে তালা লাগাবা কেন?
ছাত্রলীগ কর্মী: আমার ইচ্ছা হইছে তাই। উল্টাপাল্টা কথা বলছেন যে! আপনি কই? ডিপার্টমেন্টে থাকলে…..

এদিকে ভুক্তভোগী শিক্ষকের এই অভিযোগ নির্দ্বিধায় স্বীকার করেছেন অভিযুক্ত ওই ছাত্রলীগ নেতা রাজু মুন্সি।

উক্ত বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষক ছাত্রলীগ নেতা রাজু মুন্সির নামে ইতোমধ্যেই একটি হুমকির অভিযোগ দিয়েছেন। প্রমাণ সাপেক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তার উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে।

Check out our other content

Check out other tags:

Most Popular Articles