fbpx
1 C
Munich
শনিবার, ডিসেম্বর ৩, ২০২২

“আরইউএসসি ন্যাশনাল সায়েন্স ফিয়েস্টা-২০২২” এর পর্দা নামলো

Must read

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) দুই দিনব্যাপী বিজ্ঞান মেলা শুরু হয়েছে গতকাল শনিবার।
আজ রবিবার বিকেল ৩ঃ০০ ঘটিকায় শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে (টিএসসিসি) সমাপনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন, ড. মালা খান (চিফ সায়েন্টিফিক অফিসার এন্ড ম্যানেজিং ডিরেক্টর,বাংলাদেশ রেফারেন্স ফর কেমিক্যাল মেজারমেন্টস) এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জালাল উদ্দিন সরকার (ডিন, ভেটেরিনারি এন্ড এনিমেল সায়েন্স অনুষদ) সৈকত সরকার(ডেপুটি ডিসপ্লে অফিসার জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর), ক্লাবের প্রতিষ্ঠাকালীন উপদেষ্টা প্রফেসর ড. তারিকুল হাসান ( রসায়ন বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়) এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সায়েন্স ক্লাবের উপদেষ্টামন্ডলী।

ফিয়েস্টার সভাপতিত্ব করেন, রাবি সায়েন্স ক্লাবের সভাপতি আবিদ হাসান এবং উপস্থাপন করেন, ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল লতিফ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন আরা নিশু।
অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জহুরুল ইসলাম মুন। তিনি বলেন, গুটি কয়েকজন নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সায়েন্স ক্লাব। আজ এই ক্লাস তার কাজের মাধ্যমে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর দ্বারা নিবন্ধিত হয়েছে।

এরপর অতিথিরা স্মরনিকা এর মোড়ক উন্মোচন করে।
সৈকত সরকার বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সায়েন্স ক্লাবের এমন আয়োজকে আমরা স্বাধুবাদ জানাই। আমাদের সব সময় বিজ্ঞানের সাথে থাকতে হবে, বিজ্ঞানকে ভালোবাসতে হবে।

তারিকুল হাসান স্যার তার বক্তব্যে বলেন, সরকার ভিশন-২০৪১ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। সেই ভিশন পূরণ করার জন্য বিজ্ঞানের বিকল্প নেই। বিজ্ঞানকে আমাদের গভীর ভাবে দেখতে হবে, পড়তে হবে। মুখস্থ বিদ্যা থেকে বের হয়ে আসতে হবে।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, আমরা সবাই বিজ্ঞানী। রান্নার সময় মা চিন্তা করে, ভাত রান্না করে শর্করার চাহিদা পূরণের জন্য , মাংস বা মাছ রান্না করে প্রোটিনের চাহিদা পূরণের জন্য, এবং শাক রান্না করে ভিটামিনের চাহিদা পূরণের জন্য। আমাদের পিতামাতাও বিজ্ঞানী। বর্তমানে ধারণা করা হয়, মানুষ বিজ্ঞান বিমুখী। কিন্তু বিষয়টা এরকম না। এখন সবাই বিজ্ঞান নিয়ে ভাবে কাজ করে। সবগুলোই মধ্যেই বিজ্ঞান আছে। বিজ্ঞান মনস্ক হলে শুধু বিজ্ঞান বিভাগ হতে হবে, এমনটা নয়। কলা ও বানিজ্য বিভাগের শিক্ষার্থীরাও বিজ্ঞান চর্চা করতে পারে। এটা সবার জন্য উন্মুক্ত।

ক্লাবের সভাপতি তার বক্তব্যে বলেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সায়েন্স ক্লাব বিজ্ঞান জনপ্রিয় করার জন্য প্রতিনিয়ত বিভিন্ন আয়োজন করে যাচ্ছে। এর ধারাবাহিকতায় এই বছর ষষ্ঠবারের মতো টেকসই উন্নয়নের ৯ টি লক্ষ্যমাত্রাকে সামনে রেখে আয়োজন করছে “৬ষ্ঠ আরইউএসসি ন্যাশনাল সায়েন্স ফিয়েস্টা ২০২২”৷ দুই শতরও অধীক প্রতিষ্ঠান থেকে দুই হাজারেরও বেশি শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে আমাদের এবারের আয়োজন একটি নতুন মাইলফলক স্পর্শ করছে। আমরা ভবিষ্যতে এধরনের আয়োজন করার ক্ষেত্রে এবারের আয়োজন আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা হবে।

এবারের বিজ্ঞান মেলায় দশটি আয়োজন ছিল। আয়োজনের বিজয়ীদের মধ্যে থেকে প্রথম তিনজনকে ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট, টি-শার্ট এবং চ্যাম্পিয়ানদের প্রাইজ মানি দেওয়া হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠান শুরুর পূর্বে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে থেকে উপস্থিত বক্তব্য নেওয়া হয়।

দ্বিতীয় দিনে বিজ্ঞান মেলায় আয়োজন ছিলো, প্রজেক্ট শো কমপিটিশন, পোস্টার প্রেজেন্টেশন, ওয়াল ম্যাগাজিন, সায়েন্টিফিক স্পিচ কম্পিটিশন, রুবিক্স’স কিউব, পেইন্টিং কম্পিটিশন, তিন মিনিট থিসিস প্রেজেন্টেশন।

এছাড়াও সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে স্টার ভিজুয়ালাইজেশন, 3D, 4D, 6D এবং 9D মুভি শো এবং স্টেজ সায়েন্স শো দেখার সুযোগ।
দুইদিনের এই আয়োজন প্রায় দুইহাজার শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে।

এবারের সায়েন্স ফিয়েস্টায় কোলাবোরেশানে রয়েছে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর, সাপোর্টিং পার্টনার ইএমকে সেন্টার, মিনিস্ট্রি অফ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি এবং চিরকুট, এসোসিয়েট পার্টনার প্রথম আলো,পাবলিকেশন পার্টনার ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড, ম্যাগাজিন পার্টনার বিজ্ঞানচিন্তা, মিডিয়া পার্টনার যমুনা টেলিভিশন ।

আরো পড়ুন

x